তিরিশে বিশ হওয়ার চেষ্টা করুন

Life24 Desk   -  

কথায় বলে মেয়েরা কুড়িতে বুড়ি, তবে আজকাল কিন্তু এই সমীকরণটা অনেকটাই বদলেছে। এখন আর তড়িঘড়ি কুড়ির কোটায় ঢুকলেই বিয়ে নয়, এখন জীবনটা অনেকটাই অন্যরকম সে মেয়ে বলুন কী ছেলে। এখন আমরা সবাই সময় নিয়ে সব কিছু করি। তবে তিরিশের কোটায় আসতে আসতে অনেক সময়ই আপনার মনে হতে পারে ইসস জীবনটা হঠাত্ করে যেন থেমে গেল, যেন সবই পেয়ে গেলাম। নতুন করে কিছু করার সেই মনোভাবটা যেন হারিয়ে গেছে। এখানেই যত সমস্যা, মানে এখানেই আপনি বয়সের অঙ্কের কাছে হেরে গেলেন, তাহলে এখন উপায় কী? আরে বাবা বয়সের অঙ্ককে তার মতো বাড়তে দিন সেটা তো আপনি আটকাতে পারবেন না কিন্তু মনের বয়সটাকে বিশে আপনি খুব সহজে ধরে রাখতে পারেন। চলুন আজ সেই নিয়েই আমরা আলোচনা করি।

নতুন কিছু শিখুন

ভাবছেন বাড়িতে অবসর সময় কিছু করতে পারলে ভালো লাগত, বেশ তো ক্ষতি কী? এতো ভালো কথা ভেবেছেন, নতুন ভাষা শিখতে পারেন, জানি ওমনি মনে হল আবার ক্লাস করতে যাওয়া ঝামেলা। তবে বলি বাড়ি বসেই আপনি স্মার্ট ফোনের দৌলতে শিখে ফেলতে পারেন স্প্যানিশ বা চাইনিজ যা আপনার খুশি। শুধু কষ্ট করে ঘরে বসে আঙ্গুল নাড়াতে হবে, ব্যাস দেখুন আপনার পরিচিতিতে আপনাকে নিয়ে কেমন চর্চা হয়।

ইস্টুটাইল

স্টাইল তো এতদিন করলেন, এবার একটু ইস্টুটাইল করুন তো দেখি! সেই একই কুর্তি আর চুড়িদার থেকে বেড়িয়ে একটু সাহস দেখিয়ে স্কার্ট বা পালাজো ট্রাই করুন না। সেই কবে বিয়ের আগের বছর একটু স্টাইল করে চুল কেটেছিলেন, এখন আর ওসব ভালোলাগে কী! আরে এই চিন্তাটাই ভুল। একটু হেয়ার কালার করান, নতুন কিছু জুতো জামা, সাজের ট্রেন্ড ট্রাই করুন। ওই জন্যই তো বলছি স্টাইল অনেক হয়েছে এবার একটু ইস্টুটাইল করেই দেখুন না নিজেকে কেমন নতুন লাগবে!

মার ঝাড়ু মার

প্রতিবার পুজোর আগে ঘর ঝাড়ার সময় ভাবেন এবারটা থাক সামনের বছর এইসব পুরনো জিনিসপত্র ফেলবই, কখন কী কাজে লাগে, কিন্তু এবার আর এসব চলবে না। পুরনো জিনিসকে এবার ঝাড়ু মারুন, অত আবেগে ভাসলে জীবনে এগোবেন কী করে। শুধু জিনিসই বা বলব কেন মন থেকেও আপনার ভারের বোঝাগুলো এবার হটানোর ব্যবস্থা করুন। পুরনোকে না ঝাড়লে নতুনকে জায়গা দেবেন কী করে!

বেড়ুবেড়ু

অফিস আর সংসারের চাপ সারাজীবন থাকবে তাই বলে কি নিজেকে ভুলে গেলে চলবে? এই জন্য মাঝে মাঝে ঘুরতে বেরিয়ে যান। মন আর মাথা দুটোরই রেস্ট দরকার মাঝে মাঝে তাই প্রয়োজন ঘুরে বেড়ানোর। এক দিন বা দু ছুটিতে বেড়িয়ে যান ঘুরতে, সঙ্গী পাচ্ছেন না তো কি আপনি একাই একশো।

শেপে ফিরুন

বাঙালি মানেই মোটা ভুড়িয়ালা চেহারা আজকাল আর চলেনা, এখন সবাই হেলথ কনসাস তাই এবার আপনার পালা খাওয়া দাওয়া কন্ট্রোল করে শেপে আসার। এক সপ্তাহ খুব ডায়েট করলেন আর এক সপ্তাহ বিরিয়ানি চিকেনচাপ খেয়ে নিলেন এমনটা এবার কড়া হাতে বন্ধ করুন। ক্যালরি মেন্টেন করে খাওয়া দাওয়া করুন। রাস্তা দিয়ে যাওয়ার সময় যখন দুটো মানুষ তাকিয়ে দেখবে আপনাকে দেখবেন নিজের থেকেই মনে হবে কন্ট্রোল করি।

সখ চর্চা

চাকরি বা ঘরকন্যা এগুলো করেও একটু সময় আপনি চাইলেই বার করতে পারেন সপ্তাহে দু গান বা ছবি আঁকার জন্য, যেটা আপনি ছোটবেলা থেকে ভালোবেসে এসেছেন সেটাকে জীবনের চাপে দূরে সরিয়ে দেওয়াটা অন্যায় হয় নিজের প্রতি। তাই পছন্দের জিনিসটাকে নিয়ে চর্চা করুন।

মেলামেশা

রান্নার ফাঁকে ফাঁকে সুযোগ পেলেই ফোনটা নিয়ে একটু দেখে নেন কে কে মেসেজ করল। অনেক বন্ধু আপনার তাই মেসেজও আসতে থাকে বিপ বিপ। এর জন্য বাড়ির পাশের লোকজনের সাথে মেলামেশারও দরকার পড়েনা, এটা কিন্তু খুব খারাপ। ফোনের জগত্-এর সাথে আপনি যতটা একাত্ম ততটাই আপনার আশেপাশের মানুষের সাথে সামনা সামনি হওয়া উচিত্। সময় পেলেই আত্মীয় স্বজনকে ফোন করা, বিকেলে বেড়িয়ে একটু আড্ডা দেওয়া এগুলোও দরকার।

বই বুক

বই পড়তে ছোটবেলায় খুব ভালোবাসতেন কিন্তু এখন আর সময় করে উঠতে পারেন না। এটা সম্পূর্ন বাজে কথা, বাচ্চাকে পড়াচ্ছেন সেই সময় নিজেও একটা গল্পের বই খুলে বসলেন, দেখবেন পড়ানোর ধৈর‌্য অনেক বেড়ে যাবে। বাসে অফিস যাচ্ছেন একেক দিন কানে হেডফোন না গুঁজে বই পড়ুন মোদ্দা কথা বই এর জন্য একটু সময় বুক করুন নতুন নতুন বই কিনুন দেখবেন অনেকটা মন ফ্রেশ লাগবে কাজেও এনার্জি পাবেন।

গেম অন

খেলা নিয়ে সবাইকে আপনি জ্ঞান দেন, নিজের বাচ্চাটাকেও বিকেলে জোর করে খেলতে পাঠান কিন্তু নিজের বেলা  ধুস সেসবের আর বয়স আছে নাকি! এই চিন্তাটাই মাথা থেকে বার করুন বরং ফিট থাকতে এখনই আদর্শই সময় খেলায় জয়েন করার, সেটা যা কিছু হতে পারে ব্যাডমিন্টন, গলফ যা আপনার পছন্দ এতে স্পিরিট বাড়ে এবং নেগেটিভ চিন্তাভাবনাও দূরে থাকে।

যরা হটকে

তিরিশে এসে এমন কিছু করুন যা আগে কখনও স্বপ্নেও ভাবেননি। এই যেমন ধরুননা স্ট্রিপটিজ দেখুন, ভুতুড়ে জায়গায় ঘুরতে যান, বাঞ্জিং জাম্পিং বা স্কাই ড্রাইভিং করুন, নতুন কোন ইন্টারেস্টিং কম্পিটিশনে নাম দিন দেখবেন জীবনে খানিকটা অ্যাডভেঞ্চার আনতে পারবেন। এতদিন তো একঘেয়ে জীবন কাটালেন এবার একটু হটকে কিছু করে দেখানতো।

না মানে না

অফিসে বা ঘরে সবসময় অশান্তির ভয়ে সবকিছুকে অ্যাডজাস্ট করার অভ্যাসটাকে এবার বাদ দিন, যেটা আপনার অপছন্দ সেটাকে মুখের ওপর না বলতে শিখুন। সবসময় ভালোমানুষ সাজলে সবাই পেয়ে বসবে এটা মাথায় রেখে নিজেকে বদলান আজ থেকেই।

এতক্ষন যে এতকিছু বলা হল জানি মনে মনে ভাবছেন কথাগুলো খুব সত্যি সাথে আবার ভাবছেন এরকম কি সত্যি হতে পারব! আর পারব বলার সময় নেই এবার সময় পারার। তাই আর ভাবনা চিন্তা না করে আজ থেকেই নিজেকে বদলানোর প্রস্তুতি চালু করে দিন।

Spread the love

আপনার প্রিয় ওয়েব ম্যাগাজিন ‘Life24’-এ আপনিও লিখতে পারেন এই ম্যাগাজিনের উপযুক্ত যে কোনও লেখা। লেখার সঙ্গে পাঠাবেন উপযুক্ত ২-৩টি ফটো। লেখা পাঠাবেন ইউনিকোডে টাইপ করে। ইউনিকোড ছাড়া কোনও লেখাই গ্রহণ করা হবে না। লেখা ও ফটো পাঠাবেন editor.life24@gmail.com আইডি-তে। কোন সেগমেন্টের লেখা পাঠাচ্ছেন, তা মেলের সাবজেক্টে অবশ্যই লিখে দেবেন। আর অবশ্যই মেলে আপনার নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর জানাবেন।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে খুব কম খরচে আপনার পণ্য কিংবা সংস্থার বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। বিস্তারিত জানার জন্য মেল করুন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে ৩১ মার্চ পর্যন্ত আপনি একেবারেই বিনামূল্যে দিতে পারবেন শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন। এই বিভাগের যে কোনও সেগমেন্টের জন্য ৫০ শব্দের মধ্যে ইউনিকোডে লিখে মেল করে দিন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।  মেলের সাবজেক্টে লিখে দেবেন 'শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন'।

# 'Life24' ওয়েব ম্যাগাজিন বা এই ওয়েব ম্যাগাজিনের লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত লিখে জানান নিচের কমেন্ট বক্স-এ। আর হ্যাঁ, ম্যাগাজিনটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন আপনার পরিচিতদের।