অভিনন্দনের ভিডিও দেখিয়ে কী করতে চায় পাকিস্তান?

Life24 Desk   -  

পাকিস্তানে বন্দী থাকা ভারতীয় বায়ুসেনার উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান দেশে ফিরেছেন। গোটা দেশ তাঁকে কুর্নিশ জানিয়েছে। শুক্রবার রাত সাড়ে ৯টা নাগাদ দেশের মাটিতে পা রেখেছেন তিনি।

পাকিস্তান অভিনন্দনকে মুক্তি দিলেও তারা ভারতের উইং কমান্ডারদের নিয়ে এমন কিছু ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়ায় ছেড়েছে তা নিয়ে বহু জায়গায় বিতর্ক শুরু হয়েছে। গত দু’দিন বায়ুসেনা কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমানের একাধিক ভিডিও ছড়িয়ে দিয়েছে পাকিস্তান কর্তৃপক্ষ। সেগুলি সরিয়ে নেওয়ার জন্য ইউটিউবকে অনুরোধও করেছে নয়াদিল্লি। এবার ভিডিও বার্তা নিয়ে বিতর্ক শুরু হল।

ওয়াঘায় ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার আগে উইং কমান্ডার অভিনন্দনকে দিয়ে ওই বিবৃতি রেকর্ড করানো হয় বলে অভিযোগ। ভিডিয়োয় অন্তত ১৬টি ‘কাট’ রয়েছে। ফলে অভিনন্দনের বিবৃতি যে ‘এডিট’ করা হয়েছে, তা স্পষ্ট। শুরু হয়েছে সমালোচনা।

ভিডিওয় অভিনন্দনকে বলতে শোনা গিয়েছে, ‘আমার নাম উইং কমান্ডার অভিনন্দন বর্তমান। আমি ভারতের যুদ্ধবিমানের পাইলট। আমি টার্গেট খোঁজার চেষ্টা করছিলাম। সে সময় পাকিস্তানি বায়ুসেনা আমার বিমানকে মাটিতে নামায়। আমাকে বিমান ছেড়ে বেরিয়ে পড়তে হয়। কারণ, বিমান ভেঙে গিয়েছিল। আমার প্যারাস্যুট খোলে। নামার পরে আমার বাঁচার একমাত্র উপায় ছিল আমার পিস্তল। আমি পালানোর চেষ্টা করেছিলাম। কিন্তু অনেক লোক ছিল। তাঁদের জোশ একেবারে তুঙ্গে ছিল। আমাকে তাই পিস্তল ফেলে দিতে হয়।’’ এরপর অভিনন্দন বলেন, ‘‘এই সময় পাকিস্তানের দুই জওয়ান আসেন। দুই জওয়ান আমাকে বাঁচান। এক ক্যাপ্টেন ছিলেন। তাঁরা কিছু হতে দেননি। তাঁরা আমাকে ইউনিটে নিয়ে যান। ফার্স্ট-এড দেওয়া হয়। তারপরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে আমার শারীরিক পরীক্ষা হয়।

আমাকে ওষুধপত্র দেওয়া হয়। পাকিস্তান সেনা পেশাদার সেনা। আই সি পিস ইন ইট। আমি পাকিস্তানি সেনার সঙ্গে সময় কাটিয়েছি। আমি অভিভূত। ভারতীয় সংবাদমাধ্যম ছোট জিনিসকে বাড়িয়ে-চড়িয়ে বলে। ছোট বিষয়ে আগুন লাগিয়ে, লঙ্কা মাখিয়ে ভুল পথে চালিত করে।’’

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের ভূমিকা নিয়ে অভিনন্দনের এই বক্তব্য ঘিরেই সমালোচনা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, ইমরান খান অভিনন্দনকে মুক্তি দিয়ে যে ইতিবাচক বার্তা দিয়েছিলেন, এই ভিডিও তৈরি করে ছড়িয়ে দেওয়া তা নষ্ট করে দেওয়া হল।

Spread the love