কমতে পারে বিজেপির আসন সংখ্যা: সমীক্ষা

Life24 Desk   -  

পুলওয়ামা হামলার পর জনপিযতার শীর্ষে ছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কিন্তু পথম দফার ভোটের পরে বদলে গিয়েছে পরিস্থিতি। আগে যে পরিমাণ আসন প্রত্যাশা করা হয়েছিলল, তার চেয়ে কমতে পারে বিজেপির আসন সংখ্যা। এমনটাই দাবি করছেন ভারতের প্রথম সারির দুই সমীক্ষক সংস্থা সি-ভোটার ও সিএসডিএসের ডিরেক্টর সঞ্জয় কুমার। সংবাদ সংস্থাকে দেওয়া সাক্ষাত্কারে এমনটাই জানিয়েছেন সঞ্জয় কুমার। সি-ভোটার-এর সর্বশেষ সমীক্ষাও বলছে গোটা দেশেই জনপ্রিয়তা কমছে মোদি সরকারের। গত এক মাসে ১৯ শতাংশ কমেছে প্রধানমন্ত্রীর জনপ্রিয়তা।

ভোটের আগে সর্বশেষ সমীক্ষায় সি-ভোটার এবং সিএসডিএস দুটি সংস্থাই বিজেপি নেতৃত্বাধীন এনডিএ জোটকে প্রায় সংখ্যাগরিষ্ঠতার কাছাকাছি আসনে রেখেছিল। কিন্তু প্রথম পর্বের ভোটের পরই তারা অবস্থান বদলেছে। গত ১৩ এপিল এক ইংরেজি দৈনিককে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে সঞ্জয় কুমার জানিয়েছেন, ‘উত্তরপ্রদেশের ৮টি লোকসভা কেন্দ্রের মধ্যে ছটি মুসলিম অধ্যুষিত কেন্দ্রে গতবারের তুলনায় ভোট কম পড়েছে। যা স্পষ্ট ইঙ্গিত দিচ্ছে এবারের ভোটে কোনও মোদি হাওয়া কাজ করছে না। আর এখানেই বিপদ আছে বিজেপির। গতবছর এই আটটিতেই জিতেছিল গেরুয়া শিবির। কিন্তু এবার অন্তত ছটি তাদের হারাতে হবে বলে মনে হচ্ছে।’ আগের সমীক্ষায় সিএসডিএস অনুমান করেছিল উত্তরপ্রদেশে ৩২ থেকে ৪০টি আসন পেতে পারে। কিন্তু প্রথম রাউন্ডের পরে তারা তাদের অনুমান কমিয়া করেছে ২০ থেকে ২৫টি আসন। শুধু উত্তরপ্রদেশ নয়, যদি ভোটের হার না বাড়ে তাহলে বিহার এবং মহারাষ্ট্রেও প্রত্যাশার তুলনায় অনেক কম আসন পেতে পারে বিজেপি। এমনটাই দাবি সঞ্জয় কুমারের। আগের সমীক্ষায় বিহারে এনডিএ পাচ্ছিল ২৮ থেকে ৩৪টি আসন। মহারাষ্ট্রে আসন সংখ্যার অনুমান ছিল ৩৮-৪২। কিন্তু সঞ্জয় কুমার বলছেন, পুলওয়ামার পরে যে মোদি হাওয়া তৈরি হয়েছিল, তা স্তিমিত। এখন ভোট হচ্ছে স্থানীয় ইস্যুতে। আর তা বিজেপির জন্য খারাপ খবর।

শুধু সিএসডিএস নয়। সি-ভোটারও বিজেপির আসন সংখ্যা প্রত্যাশার তুলনায় অনেকটাই কম হবে বলে মনে করছে। সি-ভোটারের সমীক্ষা অনুযায়ী গত ৭ মার্চ বিজেপির জনপ্রিয়তা ছিল প্রায় ৬২ শতাংশ। মাত্র একমাসের মধ্যে ১২ এপিল তা কমে হয়েছে ৪৩ শতাংশ। অর্থাত্, একমাসে কমেছে পায ১৯ শতাংশ। এই ট্রেন্ড বজায় থাকলে গেরুয়া শিবির অনেকটাই খারাপ পারফরম্যান্স করতে পারে। সি-ভোটার মনে করছে মোদির জনপ্রিয়তা পুলওয়ামার আগে যেমন ছিল, এখনও সেই পরিস্থিতিতে ফিরে এসেছে।

Spread the love