কর্মক্ষেত্রে আপনাকে মুখ খুলতে হবে ভেবেচিন্তে

Life24 Desk   -  

এমন জায়গায় মুখ ফসকে কিছু বলে ফেললেন যে আপনার সম্মানটা তো গেলই, উল্টোদিকে চাকরি নিয়েও টানাটানি। প্রায়ই আমরা দেখতে পাই রাস্তা-ঘাটে, স্কুল-কলেজে, কাজের জায়গায় কেউ কেউ মুখ ফসকে এমন কিছু বলে ফেলে যার জন্য সে খারাপ হয়ে যায় অন্যের কাছে।

সঠিক বাচনভঙ্গি একজনকে সাফল্যের চূড়ায় পেঁৗছে দিতে পারে। সমাজে মর‌্যাদাও বৃদ্ধি করে। কিন্তু তার জন্য নিজেকে সংযত করা উচিত। নিজের কথা বলার ধরনকে ঠিকঠাক ঘষামাজা করে নেওয়া খুব জরুরি। আপনি মুখ খুললেই অযাচিত পরিস্থিতিতে পড়তে হয়। মান-সম্মান নিয়ে টানাপোড়েন হয়। তবে এর থেকে বেরিয়ে আসার উপায় রয়েছে। রইল কিছু গুরুত্বপূর্ণ পরামর্শ। এগুলো মেনে চলতে পারলে উপকার পেতে পারেন।

১. যে কোনও জায়গায় বডি ল্যাঙ্গুয়েজ ধরে রাখা জরুরি। মনে রাখবেন যতই মুখে কথা বলুন না কেন আপনার অঙ্গভঙ্গিও কিন্তু কথা বলে। তাই সতর্ক থাকুন। যখন কোনও আলোচনা বা ইন্টারভিউ চলছে, আপনার সঠিক হাবভাব কিন্তু খুবই দরকারি। সামনের ব্যক্তির সঙ্গে যখন কথা বলছেন তখন তার চোখের দিকে তাকিয়ে কথা বলুন। হেলেদুলে নয়, মেরুদণ্ড সোজা রেখে বসুন। এই আত্মবিশ্বাস অন্যদের নজর কাড়বে।

২. কারণ ছাড়া উম…হুম… দিয়ে অনেক সময় কাজ চলে যায়। আবার আজকের ডিজিট্যাল দুনিয়ায় একটা লাইক চিহ্ন ভালোলাগাটুকু বোঝাতে যথেষ্ট। কিন্তু এসব এড়িয়ে চলুন, নিজের মতামতকে বলিষ্ঠ করে তুলতে আর মুখ বুজে থাকা নয়।

৩. ভালো বক্তা হওয়াটা খুব জরুরি। এটা সবাই হতে পারে না। তাই বলে অযথা বকাও ভালো না। এতে পাশের লোকটা বিরক্ত হয়। কিন্তু মুখের সামনে বহু মানুষের ভিড়। স্বাভাবিক ভাবেই ঘাবড়ে গিয়ে গলা দিয়ে আর আওয়াজ বেরতে চায় না। কিন্তু নিজের সম্মান তো বজায় রাখতে হবে! তাই কোনও অনুষ্ঠান বা প্রতিযোগিতায় আপনার বক্তব্য রাখার আগে নিজেকে একবার যাচাই করে নিন। তাতে আপনার ভয়ও কাটবে, আত্মবিশ্বাসও বাড়বে।

৪. কী বলবেন সেটা মনে মনে ভেবে নিন। গল্প বলার স্বচ্ছলতা ভাবমূর্তি পাল্টে দেবে।

৫. নিজের মনের যে প্রশ্ন রয়েছে তাকে দমিয়ে রাখবেন না। প্রয়োজনে মুখ খুলুন। মনের দ্বিধা দূর করুন। তাতে আপনার জ্ঞানও বাড়বে। আবার কথা বলার দ্বিধাও দূর হবে। ইন্টারভিউতে যা জিজ্ঞাসা করার রয়েছে সেটা করতে হবে। তবে এমন কিছু জিজ্ঞাসা করে বসবেন না যেটা আপনার চাকরি না হওয়ার জন্য যথেষ্ট।

৬. অফিসে কথা বলছেন, অমনি বেজে উঠল ফোন! প্রযুক্তির যেমন সুফল আছে, তেমনি পিছু ছাড়ে না একান্ত মুহূর্তেও। তবে বেশি উত্তেজিত না হয়ে দরকারে কেউ ফোন করলে কথা বলুন, নয়তো এড়িয়ে যান। কেউ যেন বিরক্ত বোধ না করে।

৭. আপনি কী বলতে চাইছেন তা স্পষ্ট করে বলুন। জটিল করে তুলবেন না।

৮. মনে রাখবেন আপনি নিজেই কিন্তু আপনার সবচেয়ে বড় সমালোচক। তাই লজ্জাশরম দূরে রেখে নিজের দোষগুণ যাচাই করে পরিবর্তন করুন নিজেকে। যে কোনও আলোচনা মানেই তা দ্বিপাক্ষিক। তাই আপনার অংশ নেওয়াটাও কিন্তু খুবই জরুরি।

৯. আপনার বক্তব্যকে এমনভাবে তুলে ধরুন যাতে সকলের মনে তা জায়গা করে নিতে পারে। মনে রাখবেন, শ্রোতাকে আকর্ষিত করা ও তাদের মনোযোগ বজায় রাখা বড় চ্যালেঞ্জ।

১০. শুধু আপনি নিজেই কথা বলে যাচ্ছেন, এমনটা করবেন না। আলোচনায় বাকি অংশগ্রহণকারীদেরও বক্তব্য রাখার সুযোগ দিন। নিজে কথা বলে গেলে বাকিরা বিরক্ত হবে।

Spread the love

আপনার প্রিয় ওয়েব ম্যাগাজিন ‘Life24’-এ আপনিও লিখতে পারেন এই ম্যাগাজিনের উপযুক্ত যে কোনও লেখা। লেখার সঙ্গে পাঠাবেন উপযুক্ত ২-৩টি ফটো। লেখা পাঠাবেন ইউনিকোডে টাইপ করে। ইউনিকোড ছাড়া কোনও লেখাই গ্রহণ করা হবে না। লেখা ও ফটো পাঠাবেন editor.life24@gmail.com আইডি-তে। কোন সেগমেন্টের লেখা পাঠাচ্ছেন, তা মেলের সাবজেক্টে অবশ্যই লিখে দেবেন। আর অবশ্যই মেলে আপনার নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর জানাবেন।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে খুব কম খরচে আপনার পণ্য কিংবা সংস্থার বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। বিস্তারিত জানার জন্য মেল করুন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে ৩১ মার্চ পর্যন্ত আপনি একেবারেই বিনামূল্যে দিতে পারবেন শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন। এই বিভাগের যে কোনও সেগমেন্টের জন্য ৫০ শব্দের মধ্যে ইউনিকোডে লিখে মেল করে দিন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।  মেলের সাবজেক্টে লিখে দেবেন 'শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন'।

# 'Life24' ওয়েব ম্যাগাজিন বা এই ওয়েব ম্যাগাজিনের লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত লিখে জানান নিচের কমেন্ট বক্স-এ। আর হ্যাঁ, ম্যাগাজিনটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন আপনার পরিচিতদের।