আধিকারিকদের ইস্তফায় কী সরকারের ক্ষতির সম্ভাবনা?

Life24 Desk   -  

সম্প্রতি কেন্দ্রের বিভিন্ন দফতরের আধিকারিকদের ইস্তফা দেওয়ায় রাজনৈতিক মহলে শোরগোল পড়ে গিয়েছে। এতে অনেক ক্ষেত্রে সরকারি দফতরে বিজেপি সরকারের হস্তক্ষেপের ইস্যু উঠে আসছে। বিভিন্ন পরিসংখ্যান নিয়ে যে বিতর্ক দেখা দিয়েছে, তা শুধু অনভিপ্রেতই নয়, বিপজ্জনকও। এই বিতর্কের জেরে ন্যাশনাল স্ট্যাটিসটিক্যাল কমিশনের দুই সদস্যের সাম্প্রতিক পদত্যাগ যতটা দুর্ভাগ্যজনক, ততটাই উদ্বেগের তাঁদের অভিযোগ।

পদত্যাগকারী সদস্য পিসি মোহনন  অভিযোগ করেছেন, একের পর এক ইস্যুতে তাঁদের মতামত এমন ভাবে উপেক্ষা করা হচ্ছিল যে তাঁদের পক্ষে নিরপেক্ষ ভাবে কাজ করা অসম্ভব হয়ে উঠেছিল। ভারতের মতো উন্নয়নশীল দেশে সরকারি নীতি নির্ধারণ থেকে আরম্ভ করে বিভিন্ন প্রকল্পের রূপায়ণে প্রতি পদক্ষেপে নির্ভরযোগ্য পরিসংখ্যানের প্রয়োজ। দুর্ভাগ্যবশত এই বিতর্কের ফলে বিভিন্ন ক্ষেত্রের পরিসংখ্যানগুলির নির্ভরযোগ্যতা নিয়েই প্রশ্ন উঠেছে। এর প্রকৃষ্ট উদাহরণ বেকারত্বের হার নিয়ে এনএসএসও-র পরিসংখ্যান ঘিরে চলতে থাকা রাজনৈতিক তরজা। খবরে প্রকাশ, বিগত দু’ মাস এই পরিসংখ্যান তৈরি থাকলেও সরকার এখনও সে পরিসংখ্যান অনুমোদন করেনি এই অজুহাতে যে, নীতি আয়োগ সে পরিসংখ্যান প্রকাশ করতে অস্বীকার করেছে।

সংবাদমাধ্যমে ফাঁস হয়ে যাওয়ায় দেখা যাচ্ছে যে, সেই পরিসংখ্যান অনুযায়ী ২০১৭-১৮ সালে দেশে বেকারত্বের হার ছিল ৬.১ শতাংশ, যা বিগত ৪৫ বছরে সর্বেচ্চ। স্বভাবতই বিরোধী দলগুলি অভিযোগ তুলেছে যে বিজেপি নেতৃত্বাধীন সরকারের বিপুল চাকরির সুযোগ সৃষ্টির যে দাবি, এই পরিসংখ্যানে তা ভুল প্রমাণিত। ফলে রাজনৈতিক কারণেই কেন্দ্রীয় সরকার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনের আগে তা প্রকাশে অনিচ্ছুক।

বাজেটের ঠিক আগে কেন্দ্রীয় সরকার যে ভাবে ২০১৬-১৭ সালের জাতীয় আয়বৃদ্ধির পরিসংখ্যান পরিমার্জিত করেছিল, বিতর্ক উঠেছে তা নিয়েও। কেন্দ্রীয় সরকারের স্মরণে রাখা উচিত যে পরিসংখ্যানের উপর নির্ভর করে সাধারণ মানুষ ভোট দেন না। পরিসংখ্যান যা-ই হোক না কেন, ভোটাররা কোনও সরকারকে সমর্থন বা তার বিরোধিতা করে থাকেন তাঁদের দৈনন্দিন জীবনের অভিজ্ঞতার ভিত্তিতে। পরিসংখ্যান সঠিক না হলে সেই জীবনের মানোন্নয়নের লক্ষ্যে নীতি নির্ধারণ ও প্রকল্প রূপায়ণ কঠিন হয়ে পড়ায় ব্যাহত হয় জাতীয় উন্নয়ন। পরিসংখ্যান থেকেই উঠে আসে বিভিন্ন ক্ষেত্রের প্রকৃত সমস্যাগুলি। পরিসংখ্যান নির্ভরযোগ্য না হলে, সেগুলির সমাধানও অসম্ভব হয়ে পড়ে। কাজেই পরিসংখ্যানের রাজনীতিকরণের এই প্রবণতা পরিহার করা অত্যন্ত জরুরি।

Spread the love

আপনার প্রিয় ওয়েব ম্যাগাজিন ‘Life24’-এ আপনিও লিখতে পারেন এই ম্যাগাজিনের উপযুক্ত যে কোনও লেখা। লেখার সঙ্গে পাঠাবেন উপযুক্ত ২-৩টি ফটো। লেখা পাঠাবেন ইউনিকোডে টাইপ করে। ইউনিকোড ছাড়া কোনও লেখাই গ্রহণ করা হবে না। লেখা ও ফটো পাঠাবেন editor.life24@gmail.com আইডি-তে। কোন সেগমেন্টের লেখা পাঠাচ্ছেন, তা মেলের সাবজেক্টে অবশ্যই লিখে দেবেন। আর অবশ্যই মেলে আপনার নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর জানাবেন।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে খুব কম খরচে আপনার পণ্য কিংবা সংস্থার বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। বিস্তারিত জানার জন্য মেল করুন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে ৩১ মার্চ পর্যন্ত আপনি একেবারেই বিনামূল্যে দিতে পারবেন শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন। এই বিভাগের যে কোনও সেগমেন্টের জন্য ৫০ শব্দের মধ্যে ইউনিকোডে লিখে মেল করে দিন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।  মেলের সাবজেক্টে লিখে দেবেন 'শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন'।

# 'Life24' ওয়েব ম্যাগাজিন বা এই ওয়েব ম্যাগাজিনের লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত লিখে জানান নিচের কমেন্ট বক্স-এ। আর হ্যাঁ, ম্যাগাজিনটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন আপনার পরিচিতদের।