বিজ্ঞাপনে এগিয়ে কোন টলি-তারকা?

Life24 Desk   -  

রুপোলি পর্দায় যিনি যত হিট, বিজ্ঞাপনের বাজারে তাঁর চাহিদা তত বেশি। অভিনেতাদের মধ্যে এক নম্বরের লড়াই দেব এবং আবীর চট্টোপাধ্যায়ের। সেই কারণেই আবীরকে নিয়ে অনেক ব্র্যান্ড আগ্রহী। শহরকেন্দ্রিক ইভেন্ট এবং প্রডাক্ট লঞ্চেও অভিনেতার চাহিদা বাড়ছে। আবীরের হাতে ব্র্যান্ডের সংখ্যা বেশি হলে, টাকার অঙ্কে এগিয়ে দেব। দেব বা জিৎ একটি বিজ্ঞাপন থেকেই বড় অঙ্কের টাকা নেন। জিৎ একটি ব্র্যান্ডেরই প্রচার করেন। ওই ব্র্যান্ডের সর্বভারতীয় প্রচারক অক্ষয়কুমার। পরমব্রত চট্টোপাধ্যায়কে নিয়ে অনেক সংস্থাই আগ্রহী। তিনি বেশ কয়েকটি ব্র্যান্ডের প্রচারের সঙ্গে যুক্ত। কিন্তু ব্যস্ততার কারণে খুব বেশি এনডোর্সমেন্টে তাঁকে দেখা যাচ্ছে না। সিনেমার ক্ষেত্রে যিশু সেনগুপ্তর গ্রহণযোগ্যতা ক্রমশ বাড়লেও, বিজ্ঞাপনের দুনিয়ায় তিনি এখনও অনেকটাই পিছিয়ে। একই কথা প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ের ক্ষেত্রেও। তবে তিনি একটু অন্যভাবে ডিলগুলো করেন। যে-সব ব্র্যান্ড তাঁর সঙ্গে কাজ করতে আগ্রহী, তাদের তিনি নিজের সিনেমার সঙ্গে যুক্ত করে নেন। সুপারস্টারদের অরা হিট-ফ্লপের হিসেবের বাইরে। বিজ্ঞাপনের দুনিয়ায় নামী স্টারদের বাজার যে সব সময়েই ভাল তা নিয়ে দ্বিমত নেই।

নায়িকাদের ক্ষেত্রে,দীপিকা পাড়ুকোন যে গয়নার ব্র্যান্ডের মুখ,সেই বিজ্ঞাপনের  পূর্বাঞ্চলের জন্য মিমিকে নিয়েছে তারা। এনডোর্সমেন্টের সংখ্যা এবং টাকা দুইয়ের বিচারেই মিমি পয়লা নম্বরে থাকবেন। দ্বিতীয় স্থানে নুসরত জাহান। টুথপেস্ট, শাড়ি, পানীয়, টিএমটিবার-সহ বেশ কয়েকটি ব্র্যান্ডের প্রচারের মুখ নুসরত।

বিজ্ঞাপনের বাজারে বছর তিনেক আগেও শ্রাবন্তী ও শুভশ্রীর বেশ চাহিদা ছিল। কিন্তু এখন অনেকটাই ব্যাকফুটে এর মধ্যে বড় কোনও হিট দিতে না পারায়। সেই জায়গাটা এখন মিমি বা নুসরত নিয়েছেন। কোয়েল মল্লিক যেমন দু’-একটি ব্র্যান্ডের বেশি এনডোর্স করেন না। আরবান ছবির অভিনেত্রীদের মধ্যে রাইমা সেন বেশ কিছু বিজ্ঞাপন করেন। তবে রাইমা বলিউডেও কাজ করেন, তাই আরবান ক্লায়েন্টের কাছে তিনি বিশ্বাসযোগ্য মুখ। শহরকেন্দ্রিক প্রডাক্ট লঞ্চ বা ইভেন্টে রাইমা, পাওলি দাম বা পার্নো মিত্রদের চাহিদা রয়েছে।

কোনও বিজ্ঞাপনের মুখ যদি সেলেব্রিটি হন, তা হলে তার ওজন এমনিতেই অনেকটা বেড়ে যায়।ওই সেলেব্রিটি ক্রেতার কাছে পণ্যের বিশ্বাসযোগ্যতা তৈরি করেন।এটাও অনেকটা নির্ভর করে ব্যক্তির ব্র্যান্ড ভ্যালুর উপরে। কোনও তারকাকে নিয়ে হয়তো অনেক গসিপ রয়েছে, কিন্তু ব্র্যান্ড এনডোর্সমেন্টে তার প্রভাব না-ও পড়তে পারে। যেমন ধরুন, সলমন খান। একাধিক অভিযোগ তাঁর বিরুদ্ধে থাকলেও তার ছাপ ব্র্যান্ড এনডোর্সমেন্টে পড়েনি। কোনও ঘটনার পরে সাময়িক ভাবে কিছু ব্র্যান্ড হয়তো পিছিয়ে যেতে পারে। তবে আমাদের দেশে সুপারস্টারডমে ফাটল ধরানো অতটা সহজ নয়! ঠিক সেই কারণে বলিউড স্টার বা ক্রিকেটারদের এত বিজ্ঞাপনে দেখা যায়। বাংলার তারকারাও পিছিয়ে নেই।

Spread the love

আপনার প্রিয় ওয়েব ম্যাগাজিন ‘Life24’-এ আপনিও লিখতে পারেন এই ম্যাগাজিনের উপযুক্ত যে কোনও লেখা। লেখার সঙ্গে পাঠাবেন উপযুক্ত ২-৩টি ফটো। লেখা পাঠাবেন ইউনিকোডে টাইপ করে। ইউনিকোড ছাড়া কোনও লেখাই গ্রহণ করা হবে না। লেখা ও ফটো পাঠাবেন editor.life24@gmail.com আইডি-তে। কোন সেগমেন্টের লেখা পাঠাচ্ছেন, তা মেলের সাবজেক্টে অবশ্যই লিখে দেবেন। আর অবশ্যই মেলে আপনার নাম, ঠিকানা ও ফোন নম্বর জানাবেন।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে খুব কম খরচে আপনার পণ্য কিংবা সংস্থার বিজ্ঞাপন দিতে পারবেন। বিস্তারিত জানার জন্য মেল করুন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।

Life24 ওয়েব ম্যাগাজিনে ৩১ মার্চ পর্যন্ত আপনি একেবারেই বিনামূল্যে দিতে পারবেন শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন। এই বিভাগের যে কোনও সেগমেন্টের জন্য ৫০ শব্দের মধ্যে ইউনিকোডে লিখে মেল করে দিন advt.bearsmedia@gmail.com আইডি-তে।  মেলের সাবজেক্টে লিখে দেবেন 'শ্রেণীবদ্ধ বিজ্ঞাপন'।

# 'Life24' ওয়েব ম্যাগাজিন বা এই ওয়েব ম্যাগাজিনের লেখা সম্পর্কে আপনার মতামত লিখে জানান নিচের কমেন্ট বক্স-এ। আর হ্যাঁ, ম্যাগাজিনটি ভালো লাগলে শেয়ার করুন আপনার পরিচিতদের।